Humans of Thakurgaon > Stories > Runners-up at National School Hockey Competition 2017


"সালন্দর উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তির সময়েও আমাদের খেলাধুলা সম্পর্কে তেমন একটা ধারণা ছিল না। ২০১২-১৩ সালে শ্রদ্ধেয় রানা স্যার এই বিদ্যালয়ে আসবার পর থেকে আমরা খেলাধুলার সাথে জড়িয়ে পড়ি। সে সময় পর্যন্ত এখানে হকি খেলা শুরু হয়নি। অবশ্য আমরা হ্যান্ডবল এবং কাবাডি খেলার সাথে যুক্ত হয়ে পড়েছিলাম ততোদিনে। ২০১৪-১৫ ক্রীড়া মৌসুমে কাবাডিতে জেলা পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হলেও, বিভাগীয় পর্যায়ে ফলাফল অর্জনে আমরা ব্যার্থ হই।

২০১৬ সালে রানা স্যারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় শীতকালীন অন্তঃস্কুল ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় হকি এবং বাস্কেটবল খেলা অন্তর্ভুক্ত হয়। স্যার আমাদের বলেন যে, এই খেলা দুটো আমাদের দেশে নতুন হওয়ায় জাতীয় দলে স্থান করে নেওয়াটা তুলনামূলক সহজ হবার কথা। তৎকালে খেলার প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি না থাকলেও আমরা পুরোনো হকি-স্টিক এবং বাস্কেটবল নিয়েই খেলা শুরু করে দেই। সে বছর জাতীয় হকি টুর্নামেন্টে আমরা জেলা পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে বিভাগীয় পর্যায়ে গেলেও জাতীয় পর্যায়ে যেতে পারিনি। পরের বছর, ২০১৭ সালে একই প্রতিযোগিতায় আমরা সারা বাংলাদেশে রানার্স-আপ হই! এই বছরে, ২০১৮ সালের জাতীয় হকি টুর্নামেন্টে আরও ভালো ফলাফল অর্জনের জন্য আমরা তুমুল প্রস্তুতি নিচ্ছি।

খেলাধুলা জগতে আসবার পর থেকেই আমরা নানান রকম বাধার সম্মুখীন হয়েছি। পরিবার থেকে প্রথমদিকে সমর্থন পেলেও সামাজিকভাবে আমাদের অনুমোদন দেওয়া হয়নি। একসময় আমাদের পরিবারও খেলাধুলার বিরুদ্ধে চলে যায়। উপরন্তু, খেলাধুলার সরঞ্জামাদির সরবরাহও যে খুব একটা ছিল না, তা বলতেই হয়। সব বাধা পেরিয়ে প্রিয় রানা স্যারের সহযোগিতা আর নিজেদের কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে আমরা আজ এই পর্যায়ে আসতে পেরেছি।

আমাদের খেলাধুলার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত অর্জিত সকল সাফল্যের দিকনির্দেশক রানা স্যার এবং বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ। আমাদের অনেকেরই পারিবারের আর্থিক অবস্থা তেমন একটা ভালো নয়। সে কথা মাথায় রেখে আমাদের সকলের জন্য বিদ্যালয় থেকে বিনা বেতনে অধ্যয়নের সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। এর বাইরেও রানা স্যার ব্যাক্তিগতভাবে আমাদের আর্থিক সহযোগিতা করেছেন। এসকল সহযোগিতার জন্য আমরা চিরকাল স্যারের কাছে ঋণী হয়ে থাকব।

আমাদের সাফল্যের এ ধারাটুকু আমরা বজায় রাখতে চাই। আমরা খেলাধুলার মাধ্যমে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ‘ঠাকুরগাঁও’ জেলার নাম দীপ্তিমান করবার নির্ভীক স্বপ্ন দেখি।"


"When we got admitted in Salandar High School, we did not have much idea about sports till then. After Rana Sir had joined this school during 2012-2013, we got involved in sports. At that time, basketball or hockey were not introduced here. But we have become involved in handball and kabaddi. Although we were the district champion in Kabaddi during the season 2014-2015, we were not fortunate enough to get good outcomes in the divisional level.

Hockey and basketball were got included in the winter intra-school competition in 2016 by the earnest efforts of our dear Rana Sir. He thought that, it would be relatively easy to take place in the national team as these are comparatively new games. In spite of not having necessary sporting equipment, we started playing with the old hockey sticks and outdated basketballs. That year we could reach to the divisional level as district champion in the 'National Hockey Tournament'; but we were unable to level us up to the national level. In the next year, we could see the specks of light! In the year 2017, we got the runners-up position all over Bangladesh in the same tournament. In this year of 2018, we are preparing ourselves for a better result in the National Hockey Tournament.

Since we have come into this world of sports, we faced several obstacles. Although we got initial supports from our families, we have not been given adequate social support. At a certain time our families also went against this sports. In addition, the supply of sports equipment was not sufficient. With the help of dear Rana Sir and our hard work, we were able to overcome these obstacles lately.

All our achievements that have been done since the beginning, we cherish to offer all credit to Rana Sir and our other respected teachers. Many of our family's financial status is not affluent. All of us have been granted the opportunity to study full free at the school. Apart from this, Rana Sir personally assisted us financially, we confess. We will always be indebted to Sir for this cooperation.

We want to keep up our success with a sustainable degree. We crave to highlight the name of Thakurgaon in the area of national and international level sports."


187 April 28, 2018

  • comment Load Comments Section

    question_answer Comments

    No new comments.

Prev Next
Go back to Stories